চৌদ্দগ্রামে চোরাই তেল ও নকল বিটুমিন কারখান সন্ধান; আটক ২।

 

মেহরাব অপিঃ

কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা হাড়িসর্দার এলাকায় জেএমআই সিরিজ ফ্যাক্টরির সংলগ্ন মেসার্স আলম এন্ড সন্স নামে চোরাই তেল ও নকল বিটুমিন কারখানার সন্ধান মিলেছে।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুমিল্লা র‌্যাব-১১ সিপিসি-২ এর উপ-পরিচালক ও কোম্পানী অধিনায়ক মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিবের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালনা করে।

এসময় কারখানাটি থেকে দু’জনকে আটক করেছে র‌্যাব।

আটককৃতরা হলো উপজেলার গুনবতী ইউনিয়নের মো: আলম মিয়ার ছেলে মো: আব্দুল মান্নান(৪৮) এবং সাতবাড়িয়া এলাাকার তপবন গ্রামের মো: মোস্তফার ছেলে মো:ফোরকান(২৩)

পরবর্তীতে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এস এম মঞ্জুরুল হক এর ভ্রাম্যমাণ আদালতে মোঃ আব্দুল মান্নানকে ০১ (এক) বছর ও মোঃ ফোরকান মাহমুদকে ০৬ (ছয়) মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করে এবং চোরাই জ্বালানি তেল ও নকল বিটুমিন তৈরীর করা কারখানাটি সিলগালা করেন তিনি।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে উপজেলার গুনবতী ইউনিয়নের আলম মিয়ার ছেলে মো: আব্দুল হান্নান আবাসিক এলাকায় অবস্থিত এ কারখানায় অবৈধ উপায়ে পোড়া মবিলকে এসিডের মাধ্যমে প্রক্রিয়াজাত করে জ্বালানি তেল ও নিম্নমানের বিটুমিন তৈরী করে আসছিল। এছাড়াও মহাসড়কে চলমান লরি, কন্টিনারসহ বিভিন্ন যানবাহনের ড্রাইভারদের সাথে গোপন চুক্তির মাধ্যমে কমদামে চোরাই জ্বালানি তেল কিনে গুদামজাত করে বিভিন্ন খুচরা বিক্রেতাদের কাছে বেশি মুনাফায় বিক্রি করে আসছিল।

এ বিষয়ে স্থানীয় সাইফুল ইসলাম জানান,তারা এলাকার প্রভাবশালী মহলকে ম্যানেজ করে দীর্ঘদিন ধরে এখানে জ্বালানি তেলের গুদাম ও নকল বিটুমিন তৈরী করে আসছে। এই কারখানার আসে-পাশে অনেক বাড়িঘর রয়েছে। কোন ভাবে আগুল ধরে দুই-তিন কিলোমিটার জুড়ে আগুন ছড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা র‌্যাব-১১ সিপিসি-২ এর অধিনায়ক মেজর তালুকদার নাজমুছ সাকিব বলেন, “গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চৌদ্দগ্রামের হাড়িসর্দার এলাকায় অভিযান চালাই। সেখানে গিয়ে দেখতে পাই চোরাই জ্বালানি তেল ও নকল বিটুমিন তৈরীর কারখানাটি প্রবেশপথটি বাহিরের দিক থেকে তালা লাগিয়ে তাদের অবৈধ কার্যক্রম পরিচালনা করে। কারখানাটি আবাসিক এলাকায় থাকায় এলাকাটি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, এখানে পোড়া মবিলকে এসিডের মাধ্যমে প্রক্রিয়াজাত করে জ্বালানি তেল ও নিম্নমানের বিটুমিন তৈরী করে আসছিলো একটি অসাধু চক্র। এঘটনায় দু’জনকে আটক করা হয়। কারখানার মালিক আব্দুল হান্নান পলাতক রয়েছে।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা  নির্বাহী অফিসার এস এম মঞ্জুরুল হক  জানান, ব্যবহৃত পুরাতন মবিল ব্লিচিং পাউডার ও সালফিউরিক এসিড দ্বারা পরিশোধন করে নকল ও ভেজাল ডিজেল, মবিল উৎপাদন করে বাজারজাত করত। মবিল পরিশোধনের বর্জ্য নকল বিটুমিন হিসেবে অসাধু ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের নিকট বিক্রয় করত বলে জানা যায়।

 

 

 

You might also like
error: Content is protected !!