করোনার থাবায় স্থবির হয়ে পড়েছে কুমিল্লার পর্যটনস্থান গুলো।

সাকলাইন যোবায়ের:
 
করোনাভাইরাসের প্রভাবে স্থবির হয়ে পড়েছে কুমিল্লার  পর্যটনস্থান গুলোতে। দেশের বিভিন্নস্থান থেকে পর্যটক না আসার দরুন ফাকা হয়ে পরে আছে  কুমিল্লার পর্যটনস্থানগুলো। এতে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুক্ষীন হয়ে পড়েছে কুমিল্লার পর্যটন শিল্পসহ স্থানীয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সমূহ। মহামারী করোনা ভাইরাসের দরুন প্রায় দুই মাস যাবত দেশ লক ডাউনের দরুন কুমিল্লার ময়নামতি ক্যান্টনম্যান্টে অবস্থিত ইংরেজ কবরস্থান, কুমিল্লা কোটবাড়ির শালবন বিহার,ময়নামতি যাদুঘর,রুপবান মুড়া,কুমিল্লা বার্ডের ভিতর নীলাচলসহ পাহাড়    কোটবাড়ির বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানসমূহতে পর্যটকের উপস্থিতি নেই । যেখানে  ঈদের দিন থেকে শুরু করে ঈদের পরের এক সাপ্তাহ যাবত কুমিল্লার পর্যটন শিল্পের জন্য আর্শীবাদ হলেও প্রানঘাতী মহামারী করোনা ভাইরাসের দরুন কুমিল্লার দর্শনীয়স্থানগুলো একেবারে ফাকা। ঈদের ছুটিতে দেশের বিভিন্ন স্কুল,কলেজ ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের ও লোকজনের পদচারনায় মুখরিত হয়ে থাকত কোটবাড়ির শালবন বিহার,ময়নামতি যাদুঘর,রুপবান মুড়া,কুমিল্লা বার্ডের ভিতর নীলাচলসহ পাহাড় , চিরিয়াখানা-বোটানিক্যাল গার্ডেন, কুমিল্লা প্রানকেন্দ্র কান্দির পাড়ের  ধর্মসাগর ও নগর উদ্যান  ডঃ আখতার হামিদ খান প্রতিষ্ঠিত কেটিসিসির দর্শনীয় স্থান সমূহ, কুমিল্লার ইকোপার্ক, জেলার সুয়াগাজীতে অবস্থিত রাজেশপুর পার্ক বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান সমূহ। কুমিল্লা ক্যান্টেনমেন্ট এর ভিতরে অবস্থিত রুপসাগরসহ প্রতিটি পর্যটনস্থান লোক সমাগমের জন্য কতৃপক্ষকে রিতীমত হিমশিম খেতে হতো কিন্তু মহামারী করোনা ভাইরাসের দরুন কুমিল্লার   বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান সমূহ ফাকা হয়ে পরে আছে। যার দরুনে পর্যটন শিল্প আজ মুখ থুবড়ে পড়েছে। কুমিল্লার এসকল পর্যটনস্থান গুলোকে কেন্দ্রকরে যেসকল ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে তাদের ব্যবসার অবস্থা ভাল যাচ্ছেনা। 
 

You might also like
error: Content is protected !!